Online Update

Keep in touch for online update.
পরীক্ষা সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্যের জন্য রয়েছে অনলাইন আপডেট। ফেসবুক ফ্যানপেজ-এর কুইজে অংশগ্রহন করতে লগ-ইন কর facebook.com/Panjeree। কুইজে অংশগ্রহন করে প্রতি সপ্তাহে জিতে নাও আকর্ষনীয় পুরষ্কার।

প্রাথমিকে শিক্ষার্থীদের ডিজিটাল ইন্টার-অ্যাক্টিভ পাঠ্য বই


 
প্রাথমিক স্তরে প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণি পযর্ন্ত শিক্ষার্থীদের হাতে ইন্টার-অ্যাক্টিভ ডিজিটাল মাল্টিমিডিয়া পাঠ্যপুস্তক তুলে দিতে চায় সরকার।

প্রথম পর্যায়ে পরীক্ষামূলকভাবে দুই হাজার স্কুলে এই কর্মসূচি চালু করতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দিয়েছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান।

প্রাথমিক স্তরের খুদে শিক্ষার্থীদের ট্যাবের মাধ্যমে আনন্দদায়ক শ্রেণি পাঠদান করতে এই উদ্যোগ নিতে যাচ্ছে সরকার।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ, ব্র্যাক এবং সেভ দ্য চিলড্রেন এজন্য প্রাথমিকের অনুমোদিত ১৭টি পাঠ্যপুস্তকের ইন্টার-অ্যাক্টিভ মাল্টিমিডিয়া ডিজিটাল শিক্ষা কনটেন্ট তৈরি শুরু করেছে।

সোমবার (২৩ নভেম্বর) বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল অডিটোরিয়ামে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমানের কাছে এই ডিজিটাল কনটেন্ট উপস্থাপন করা হয়।

জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুনস্তক (এনসিটিবি) অনুমোদিত এসব বইয়ের ডিজিটাল কনটেন্ট ক্লাসরুমে ব্যবহারে পদক্ষেপ গ্রহণের নির্দেশ দেন গণশিক্ষা মন্ত্রী।

তিনি বলেন, 'প্রযুক্তির সহায়তায় নব নব দৃষ্টি প্রসারণের মাধ্যমে এ ধরণের কর্মসূচি আমাদের শিক্ষাব্যবস্থাকে এগিয়ে দেবে। শিক্ষার সাথে আনন্দযোগে বর্তমান সরকার অগ্রণী ভূমিকা পালন করবে'।

অনুষ্ঠানে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক জানান, প্রাথমিকভাবে দুই হাজার স্কুলে এই প্রকল্প চালু করা হবে।
 
পাঠ্যপুস্তকের ডিজিটাল ইন্টার-অ্যাক্টিভ কনটেন্ট এনসিটিবি থেকে অনুমোদনের তা প্রধানমন্ত্রীর কাছে উপস্থাপন করা হবে বলে জানান পলক।

এ সময় প্রযুক্তি নির্ভর শিক্ষা দিয়ে সুশিক্ষিত সুনাগরিক গড়ে তোলার কাজে প্রধানমন্ত্রীর কাছে ইতিবাচক সাড়া পাওয়া যাবে বলে আশা করেন পলক।

তিনি বলেন, আমরা প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে একটি প্রযুক্তিময় আলোকিত শৈশব ও সুশিক্ষিত জাতি গড়ে তুলতে এবং প্রাথমিক শিক্ষাকে আরও কার্যকর ও আকর্ষণীয় করে সাজাতে এই কর্মসূচি গ্রহণ করেছি।

ইতোমধ্যে আগামী বছর ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের হাতে ট্যাবের মাধ্যমে ইন্টার-অ্যাক্টিভ পদ্ধতিতে শিক্ষা দেওয়ার কার্যক্রম হাতে নিয়েছে সরকার।  

প্রাথমিক স্তরে প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য সারা দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বিদ্যুৎ সংযোগ এবং ট্যাব সরবরাহে চ্যালেঞ্জ থাকলেও অনুষ্ঠানে উপস্থিত কর্মকর্তারা মনে করেন নিজস্ব অর্থ দিয়ে তা বাস্তবায়ন করা যাবে।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব মেছবাউল আলম, আইসিটি বিভাগের সচিব শ্যাম সুন্দর সিকদার, বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের নির্বাহী পরিচালক এসএম আশরাফুল ইসলাম, এনসিটিবি চেয়ারম্যান নারায়ন চন্দ্র পাল, প্রাথিমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. আলমগীর, ব্র্যাকের পরিচালক (শিক্ষা) শফিকুল ইসলাম, সেভ দ্য চিলড্রেনের সিনিয়র শিক্ষা উপদেষ্টা ম. হাবিবুর রহমানসহ কর্মকর্তারা বক্তব্য রাখেন।
 

Related Updates