Online Update

Keep in touch for online update.
পরীক্ষা সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্যের জন্য রয়েছে অনলাইন আপডেট। ফেসবুক ফ্যানপেজ-এর কুইজে অংশগ্রহন করতে লগ-ইন কর facebook.com/Panjeree। কুইজে অংশগ্রহন করে প্রতি সপ্তাহে জিতে নাও আকর্ষনীয় পুরষ্কার।

এবার জেলা সদরেও সরকারি স্কুলে অনলাইনে ভর্তি



দেশের সব সরকারি মাধ্যমিক স্কুলে ভর্তির আবেদন প্রক্রিয়া গতকাল মঙ্গলবার থেকে শুরু হয়েছে। চলতি শিক্ষাবর্ষে শুধু রাজধানীর স্কুলগুলোতে অনলাইনে ভর্তি করা হয়েছিল। আগামী শিক্ষাবর্ষে জেলা পর্যায়ের স্কুলগুলো অনলাইন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে শিক্ষার্থী ভর্তি করতে হবে।
 
গতকাল মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর ধানমন্ডি গভ. বয়েজ হাই স্কুলে অনলাইন ভর্তি কার্যক্রম উদ্বোধন করেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। ১৩ ডিসেম্বর রাত ১১টা ৫৯ মিনিট পর্যন্ত আবেদন করা যাবে।
 
ঢাকা মহানগরীসহ (চট্টগ্রাম ছাড়া) সকল বিভাগীয় ও জেলা সদরের সরকারি মাধ্যমিক স্কুলে ভর্তির আবেদন মঙ্গলবার বেলা পৌনে ১১টা থেকে শুরু হয়েছে। http://gsa.teletalk.com.bd এই ওয়েবসাইটে গিয়ে আবেদন করতে হবে। আবেদন ফি ১৫০ টাকা পরিশোধ করতে হবে টেলিটকের মাধ্যমে।
 
যেভাবে আবেদন করতে হবে : অনলাইনে আবেদনপত্র সাবমিট করার পর অভিভাবকরা একটি ইউজার আইডি পাবেন। এ আইডি ব্যবহার করে যেকোনো টেলিটক প্রিপেইড মোবাইল নম্বর হতে এসএমএসে আবেদন ফি জমা দেয়া যাবে। ইউজার আইডিপ্রাপ্তদের পরবর্তী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে আবেদন ফি জমা দিতে হবে। এ জন্য দুটি এসএমএস করতে হবে আবেদনকারীকে। প্রথম এসএমসে এঝঅ স্পেস ণবং  স্পেস ইউজার আইডি লিখে ১৬২২২ নম্বরে পাঠাতে হবে। ফিরতি এসএমএসে নামসহ একটি পিন নম্বর পাওয়া যাবে, যা ব্যবহার করে দ্বিতীয় এসএমএস করতে হবে। দ্বিতীয় এসএমএসে এঝঅ স্পেস ণবং স্পেস দিয়ে পিন নম্বর (প্রথম এসএমএস হতে প্রাপ্ত) লিখে ১৬২২২ নম্বরে পাঠাতে হবে। সফলভাবে আবেদন ও আবেদন ফি প্রদান সম্পন্ন হলে দ্বিতীয় এসএমএসে প্রাপ্ত ইউজার আইডি ও পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে www.gsa.teletalk.com.bd এই ওয়েবসাইট হতে প্রবেশপত্র সংগ্রহ করতে হবে।
 
আবেদনপত্রের সঙ্গে প্রার্থীর ৩০০-৩০০ পিক্সেল সাইজের রঙিন ছবি স্ক্যান করে জেপিইজি ফরম্যাটে সংযুক্ত করতে হবে। এ ছাড়া অনলাইনে পূরণকৃত আবেদনপত্রের একটি প্রিন্ট কপি শিক্ষার্থীকে সংগ্রহ করতে হবে। এ থেকে প্রাপ্ত প্রবেশপত্রটি লিখিত পরীক্ষার সময় প্রদর্শন করতে হবে।
 
এ সম্পর্কে ওয়েবসাইটে বিস্তারিত তথ্য দেয়া আছে। প্রথম শ্রেণিতে ভর্তি করা হবে লটারির মাধ্যমে। ২য় ও ৩য় শ্রেণিতে বাংলা ১৫ নম্বর, ইংরেজি ১৫ নম্বর ও গণিত ২০ নম্বর মোট ৫০ নম্বরের ১ ঘণ্টার পরীক্ষা নেয়া হবে। ৪র্থ থেকে ৮ম শ্রেণি পর্যন্ত বাংলা ৩০ নম্বর, ইংরেজি ৩০ নম্বর ও গণিত ৪০ নম্বর মোট ১০০ নম্বরের ২ ঘণ্টার পরীক্ষার মাধ্যমে ভর্তি করা হবে। ৯ম শ্রেণিতে জেএসসি ও জেডিসি্থর ফলের ভিত্তিতে ভর্তি করা হবে।
 
রাজধানীর স্কুল : রাজধানীর ৩৫টি স্কুলের মধ্যে মাত্র ১৪টিতে প্রথম শ্রেণি রয়েছে। তাতে শূন্য আসন সংখ্যা ১৭৫০টি। প্রথম শ্রেণিতে ভর্তি লটারি অনুষ্ঠিত হবে ২৬ ডিসেম্বর। স্কুলগুলোয় দ্বিতীয় থেকে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। 'এ' গ্রুপের লিখিত পরীক্ষা ১৭ ডিসেম্বর, 'বি' গ্রুপের লিখিত পরীক্ষা ১৮ ডিসেম্বর এবং 'সি' গ্রুপের লিখিত পরীক্ষা ১৯ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে। এবারই প্রথম স্কুলগুলোকে ৪০ শতাংশ 'এলাকা কোটা' সংরক্ষণ করতে হবে। এ ব্যাপারে ক্যাচমেন্ট এরিয়া নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে আবেদনের সময় এলাকা কোটার বিষয়ে অপশন থাকবে। আর ভর্তির সময় ক্যাচমেন্ট এরিয়ার বিষয়ে প্রমাণপত্র দাখিল করতে হবে। এ জন্য অভিভাবকদের আইডি কার্ড, ইউটিলিটি বিল অথবা ভাড়াটিয়া হলে বাড়ির মালিক কর্তৃক প্রত্যয়নপত্র জমা দিতে হবে।
 
ভর্তি কার্যক্রম উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নের অংশ হিসেবে এসব সরকারি স্কুলে ভর্তির জন্য আবেদন, প্রবেশপত্র প্রদান, ফলাফল প্রকাশ ও ভর্তি ফি জমা দেয়া - সবই অনলাইনে করা হচ্ছে।
 
অনুষ্ঠানে ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট তারানা হালিম রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন টেলিকমিউনিকেশন প্রতিষ্ঠান টেলিটককে প্রমোট করতে শিক্ষাসহ সব মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতা চাইলেন।
 

Related Updates