Online Update

Keep in touch for online update.
পরীক্ষা সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্যের জন্য রয়েছে অনলাইন আপডেট। ফেসবুক ফ্যানপেজ-এর কুইজে অংশগ্রহন করতে লগ-ইন কর facebook.com/Panjeree। কুইজে অংশগ্রহন করে প্রতি সপ্তাহে জিতে নাও আকর্ষনীয় পুরষ্কার।

উচ্ছ্বাসে শেষ, উত্সবে শুরু



৩১ ডিসেম্বর ’১৫ বছরের শেষ দিন ছিল দেশজুড়ে উচ্ছ্বাস।  জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) ও জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট  (জেডিসি) এবং প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী  এবং ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনী এই ৪টি পরীক্ষার ফল প্রকাশের কারণেই ছিল এই উচ্ছ্বাস। ২০১৫ শিক্ষাবর্ষের বিভিন্ন সময়ে ভালো-মন্দ যাই থাকুক, শেষ দিনের উচ্ছ্বাস সব ভুলে গেছে সবাই।  জেএসসি  ও জেডিসির ২১ লাখ, প্রাথমিক ও ইবতেদায়ির ৩০ লাখ  ৪৮ হাজার শিক্ষার্থীর পাসে ঘরে ঘরে ছিল আনন্দ-উল্লাস। এ আনন্দ জোয়ারে অংশ নিয়েছে শিক্ষার্থী, শিক্ষক, অভিভাবক সবাই। শিক্ষার্থীরা নেচে গেয়ে আনন্দ উল্লাস করে। জীবনের প্রথম কোন জাতীয়ভাবে অনুষ্ঠিত পরীক্ষায় অংশ নিয়ে পাস করায় প্রাথমিকের শিশুদের এ উল্লাস-উচ্ছ্বাস ছিল চোখে পড়ার মতো। মা-বাবাকে স্কুলে নিয়ে এসে নিজে তার সাফল্যের বার্তাটি শুনিয়ে দিয়েছে। সায়মা নামের এক শিশুর জিপিএ-৫ পেয়েও বুঝতে পারেনি, সে কতটা ভালো ফল করেছে। বাবা-মায়ের আনন্দ দেখেই সে আনন্দ করতে থাকে। সায়মার মায়ের বক্তব্য ছিল এমনটাই যে, এ সাফল্য শুধু তোমার নয়, এটা আমদের জীবনেরও বড় পাওয়া।
 
জেএসসি-জেডিসি এবং প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি পরীক্ষার ফল প্রকাশের সাথে সাথে স্কুলগুলোতে খুশির জোয়ার বয়ে যায়। ফল সংগ্রহের জন্য বাবা-মাকে নিয়ে দুপুরে তারা উপস্থিত হয় স্কুল প্রাঙ্গণে। ফল ঘোষণার সাথে সাথে উচ্ছ্বাসে মেতে ওঠে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা। সবচেয়ে বেশি খুশি দেখা গেছে বাবা-মাকে। নামি-দামি স্কুলগুলোতে ছিল অন্যরকম চেহারা। ড্রামের তালে তালে নেচে-গেয়ে শিশুরা বাবা-মায়ের সাথে আনন্দ করে। ফল প্রকাশের পরপরই মিষ্টির দোকানে ছিল উপচেপড়া ভিড়। দুপুরের পর পরই দোকানের সব মিষ্টি শেষ হয়ে যায়। 
 
১ জানুয়ারি শিক্ষাবর্ষের প্রথম দিন। উত্সব দিয়েই যাত্রা শুরু হয়েছে নতুন শিক্ষাবর্ষের। এ উত্সব ছিল দেশের এক লাখেরও বেশি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে। অংশ নেয় সাড়ে ৪ কোটি শিক্ষার্থী। এ উত্সবটিই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বছরের সেরা উত্সব। এ উত্সব দিয়েই বছরটা শুরু হলো। বিদ্যালয়ে শিশুরা খালি হাতে স্কুলে গেল, হাতে পেল নতুন বই। এ কারণেই বছরের প্রথম সকালটাই আনন্দের। নগর, মফস্বলের পাশাপাশি প্রত্যন্ত এলাকার স্কুলগুলোতে বাদ পড়েনি উত্সবের ছোঁয়া থেকে। নতুন বইয়ের গন্ধে শিক্ষার্থীরা আনন্দে উদ্বেলিত। ‘নতুন বইয়ের গন্ধ শুঁকে ফুলের মতো ফুটব, বর্ণমালার গরব নিয়ে আকাশ জুড়ে উঠব’ এই শ্লোগানে এবার পালিত হয় বই উত্সব।
 
ছাত্রছাত্রীরা নেচে-গেয়ে, আনন্দ-উল্লাস করে, কোথাও কোথাও লাল-সবুজ প্ল­াকার্ড-ফেস্টুন নেড়ে, বেলুন উড়িয়ে এক উত্সবমুখর পরিবেশ সৃষ্টি করে। শিক্ষকদের হাত থেকে নতুন বই পেয়ে তারা আনন্দে উদ্বেলিত হয়। সবাই নতুন বই উঁচু করে নাড়াতে থাকে। স্কুলগুলোতে সৃষ্টি হয় এক উত্সবমুখর পরিবেশ। 
 

Related Updates